Logo

টেকনাফে পৃথক অভিযানে ১ লক্ষ ৮২ হাজার ইয়াবা উদ্ধার, ৩ রোহিঙ্গা আটক

সামসু উদ্দিন,টেকনাফ।  / ৩৩ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি, কোস্টগার্ড ও র‌্যাব পৃথক ৩টি অভিযান চালিয়ে ১ লক্ষ ৮১ হাজার ৯০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে। এ অভিযানে ৩ জন রোহিঙ্গাকে আটক এবং কাঠের ১টি নৌকা জব্দ করা হয়েছে। টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের লাফারঘোনা পয়েন্টে বিজিবির সদস্যরা অভিযান চালিয়ে কাঠের নৌকাসহ ১ লক্ষ ২০ হাজার পিস মালিকবিহীন ইয়াবা উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত ইয়াবাগুলো পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করার জন্য ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে।

টেকনাফ ২ বিজিবির অধিনায়ক লে: কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান ( পিএসসি) বলেন, ‘বুধবার ৯ সেপ্টেম্বর ভোর রাতে মাদকের একটি বড় চালান অনুপ্রবেশের গোপন সংবাদ পেয়ে টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের টেকনাফ বিওপির টহল দল নাফনদী বরাবর বিআরএম-৫ পয়েন্টের দক্ষিণে সাবরাং ইউনিয়নের লাফারঘোনা পয়েন্টে অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর কয়েকজন লোক একটি হস্তচালিত নৌকা নিয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে। তখন বিজিবি সদস্যরা চ্যালেঞ্জ করলে মাদক পাচারকারীরা নৌকা ফেলে কেওড়া বাগানের ভেতর দিয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা যায়নি। তবে ঘটনাস্থল তল্লাশী করে ২টি বস্তাসহ ১টি কাঠের নৌকা উদ্ধার করা হয়। বস্তা ২টি ব্যাটালিয়ন সদরে নিয়ে গণনা করে ১ লক্ষ ২০ হাজার ইয়াবা পিস পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত ইয়াবাগুলো পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করার জন্য ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে’।

টেকনাফে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মাদকের চালান বহনের সময় হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৩ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে। এদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট মাদক আইনে মামলা দায়েরের পর জব্দকৃত মাদকসহ আটক মাদক কারবারীদের টেকনাফ মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে। র‌্যাব-১৫ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি আব্দুল্লাহ শেখ সাদী বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৮ সেপ্টেম্বর বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে র‌্যাব-১৫ এর চৌকষ একটি আভিযানিক দল মাদক বহনের টেকনাফ-কক্সসবাজার সড়কের রঙ্গিখালী-আলীখালী পয়েন্টে অবস্থান নেয়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ধাওয়া করে ২৭নং জাদিমোরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বøক-বি-৫ এর বাসিন্দা মৃত সাঈদুল আমিনের পুত্র মুছা (২১), আব্দুল গণির পুত্র আসমত উল্লাহ (২৭) এবং একই ক্যাম্পের বøক-এ-১ এর বাসিন্দা রশিদ আহমদের পুত্র সাব্বির আহমদকে (২০) আটক করে। পরে সাক্ষীদের সম্মুখে তাদের দেহ তল্লাশী করে ৫ হাজার ৯০০ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়’।

বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীর লেঃ কমান্ডার বিএন এম হায়াত ইবনে সিদ্দিক বলেন, ‘৯ সেপ্টেম্বর ভোর রাতে কোস্ট গার্ড স্টেশন টেকনাফ কর্তৃক টেকনাফ থানার আওতাধীন সাবরাং খুরের ঘাট মেরিন ড্রাইভ এলাকায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। উক্ত অভিযান চলাকালীন সময় একটি সন্দেহজনক মোটর সাইকেলকে থামার সংকেত দিলে মোটর সাইকেলটি সংকেত উপেক্ষা করে দ্রুত মোটর সাইকেল চালিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। কোস্ট গার্ড সদস্যরাও ধাওয়া করলে মোটর সাইকেলের আরোহীরা একটি বস্তা ফেলে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ফেলে যাওয়া বস্তা তল্লাশী করে ৫৬ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ পাওয়া যায়। জব্দৃকত ইয়াবা টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড এর আওতাভুক্ত এলাকা সমূহে আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রন, জননিরাপত্তার পাশাপাশি বনদস্যুতা, ডাকাতি দমন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন রোধে কোস্ট গার্ডের জিরো টলারে›স নীতি অবল¤¦ন করে নিয়মিত অভিযান অব্যাহত আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে’।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর