Logo

রামু সিএনজি চালকদের কাছে এবার নাইক্ষ্যংছড়ি-গর্জনিয়ার সিএনজি চালকরা জিম্মি; পার্বত্য বিষয়ক মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা।

মোহাম্মদ ইউনুছ নাইক্ষ্যংছড়ি / ১০৯ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

দেশ স্বাধীনের পর থেকে অটো রিক্সার সিএনজি চালকদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সদর সহ দোছড়ি বাইশারী ও রামু উপজেলার গর্জনিয়া কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের প্রায় ২ লক্ষাধিক মানুষ। গর্জনিয়া কচ্ছপিয়া ও নাইক্ষ্যংছড়ি মানুষ দীর্ঘ দিন চেষ্টা করেও সিএনজি চালকদের কাচে জিন্মি এখনো। তার উপর এবার রামু সিএনজি চালকদের কাছে নাইক্ষ্যংছড়ি সিএনজি চালকদের লাঞ্ছিত ও হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে নাইক্ষ্যংছড়ি সিএনজি চালক সমিতির সভাপতি আব্দুর রহমান মেম্বার জানান রামু. নাইক্ষ্যংছড়ি রোডে দৈনিক ৪ শত মত সিএনজি চলাচল করছে তার মধ্য রামু কাওয়ার কোপের ও গর্জনিয়ার রয়েছে ৩ শতাধিক গাড়ি। অপর দিকে নাইক্ষ্যংছড়ির মাএ ৫০ টিরও কম গাড়ি চলাচল করছে এ রোডে। তার অভিযোগ আমাদের রাস্তা ও আমাদের যাএী ব্যাবহার করে সুবিধা নিচ্ছে রামু সংগঠন অথচ আমাদের উপর দিয়ে চলাচল করে ঠকাচ্ছে আমাদের। গত বছর নাইক্ষ্যংছড় উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফিউল্লাহ নাইক্ষ্যংছড়ি ও রামুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মধ্যস্থতায় নাইক্ষ্যংছড়ি সমিতির গাড়ি থেকে টাকা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। কিন্তু এ নিষেধ কে অমান্য করে দু গুণ টাকা আদায় করছে রামু সিএনজি সমিতি সিএনজি চালক নুরুল ইসলাম, শফি আলম, আবু ছিদ্দিক, আব্দুল মান্নান, জিয়ার রহমান, আব্দুর ছাত্তার, শামসুল আলম, বদিউর আলম, মোহাম্মদ হোছন, তারেক, জাফর, জলিল ও নুরুল হাকিম সহ অনেকে জানান, রামু সিএনজি সমিতি আমাদের কাছ থেকে নম্বার দেওয়ার নামে দৈনিক ২০ টাকা আদায় করছে আর অনেক সময় আমাদের নম্বার দেনা অপর দিকে রামু থানার ডিউটির নামে প্রতি মাসে ৪ শত টাকা আদায় করছে তাদের মতে প্রতি মাসে রামু থানায় ৩০ টি গাড়ি ডিউটি করলে ৪ শত গাড়ির মধ্যে ৫ মাসের আগে ডিউটি পড়ার কথা নয়। এ সব বিষয়ে তারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সচেতন যাএীদের দাবী, সন্ধা হলেই রামু স্টেশনে নাইক্ষ্যংছড়ি-গর্জনিয়ার মানুষের কাছ থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি গর্জনিয়ার না থাকলে ৩০/৪০ টাকার ভাড়ার স্থলে ৩ থেকে ৪ শত টাকা ভাড়া দিতে হয়। এ বিষয়ে তারা পার্বত্য বিষয়ক মন্ত্রী মহোদয় এর হস্তক্ষেপ কামনা করেন । রামু সিএনজি সমিতির সভাপতি ছৈয়দ জানান, আমরা নাইক্ষ্যংছড়ির কোন গাড়ি থেকে টাকা নিই না কোন লাইসম্যান নিলে আমি ব্যাবস্থা নিব, আর ৩ মাসের আগে কোন গাড়ি থানার ডিউটির জন্য নিই না এ বিষয়ে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা জানান, বিষয়টি নিয়ে এ পর্যন্ত কেউ আমাকে জানায়নি। এ মাত্র শুনলাম অভিযোগ পেলে আমি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর