Logo

লাশকাটা ঘরে অপকর্ম খুনি খুঁজতে গিয়ে মুন্নার সন্ধান

সমকাল। / ৩৬ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০

চলতি বছরের শুরু থেকেই আদালতের নির্দেশনার আলোকে অস্বাভাবিকভাবে মারা যাওয়া সব কিশোরী-তরুণীর ‘হাই ভেজাইনাল সোয়াব (এইচভিএস)’-এর নমুনা সংগ্রহ করে সিআইডি। এরপর সংস্থাটির ডিএনএ ল্যাবে এর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলতে থাকে। আত্মহত্যাজনিত কারণে মৃত কয়েকজন তরুণীর দেহে পরপরই একই ব্যক্তির শুক্রাণুর উপস্থিতি মেলে। যদিও ওই লাশের সুরতহাল প্রতিবেদনে আঘাতের কোনো চিহ্ন ছিল না। আবার তথ্য-উপাত্ত বিশ্নেষণ করে এটাও দেখা যায় যে, ওই মৃতদেহে আগে ধর্ষণের কোনো আলামত নেই। তাহলে কেন একের পর এক কিশোরী-তরুণীর মৃতদেহে শুক্রাণুর উপস্থিতি?
সিআইডির সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা প্রাথমিকভাবে ধারণা করেছিলেন, হয়তো ধর্ষণের আলামত লুকিয়ে রাখার জন্য আত্মহত্যাজনিত ঘটনা সাজানো হচ্ছে। পরে সিআইডির বিশদ তদন্তে বেরিয়ে আসে, আত্মহত্যার বাইরে সেখানে অন্য কোনো ক্লু ছিল না। এরপর তারা ধারণা করেন, হয়তো কোনো এক সিরিয়াল কিলার একের পর এক বয়স কম নারীকে টার্গেট করে ধর্ষণের পর হত্যা করছে। কিন্তু মরদেহে বাহ্যিক কোনো আঘাতের চিহ্ন না থাকায় সিআইডি সেই সন্দেহ থেকে সরে আসে। এরপর তারা অনুসন্ধান করতে থাকে, মরদেহগুলো মর্গে নেওয়ার পর থেকে কোন প্রক্রিয়ায় ডিসপোজাল হচ্ছে। সেটা খুঁজতে গিয়ে তারা জানতে পারেন, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গের ডোম যতন কুমারের সহযোগী হিসেবে ৪ বছর ধরে এই জঘন্য কাজ করছে তার ভাগ্নে মুন্না ভক্ত (২০)। মর্গে সে রাত কাটায়। তখন সিআইডির সন্দেহ হয়, মুন্না মানসিক বিকারগ্রস্ত রোগ ‘নেক্রোফিলিয়া’য় আক্রান্ত হতে পারে।
মৃতদেহের সঙ্গে যৌন ক্রিয়াকলাপ বা আকর্ষণ বোধ করা এক ধরনের বিকারগ্রস্ত মানসিক রোগ। মেডিকেল টার্মে একে বলা হয় ‘নেক্রোফিলিয়া’। শেষ পর্যন্ত সেই সন্দেহ সঠিক হিসেবে প্রমাণ হয়। মুন্নার ডিএনএ প্রোফাইলিং করে মর্গে থাকা লাশের সঙ্গে পাওয়া শুক্রাণু হুবহু মিলে যায়। এখন পর্যন্ত ৫ নারীর মৃতদেহে তার শুক্রাণুর অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

সিআইডি জানায়, মুন্না তার মামার সঙ্গে গত চার বছর ধরে সহকারী ডোম হিসেবে কাজ করত। যদিও সে সরকারি হাসপাতালে কোনো বেতনভোগী স্থায়ী বা অস্থায়ী কর্মী না। মামার পরিচয়ে মর্গে গত চার বছরে ৩ হাজার লাশ কেটেছে মুন্না। গত বছরের ২৯ মার্চ থেকে চলতি বছরের ২৩ আগস্ট পর্যন্ত পাঁচ কিশোরীর লাশ ধর্ষণ করেছে বলে তারা প্রমাণ পেয়েছেন। মৃত এই কিশোরীদের চারজনের বয়স ছিল ১১-১৭ বছর। আরেকজনের বয়স ১৮ বছরের বেশি। আত্মহত্যার পর তাদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে নেওয়া হয়েছিল।
শুক্রবার সমকালে প্রথম পাতায় ‘লাশকাটা ঘরও নিরাপদ নয়’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশের পর ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়। গতকাল শুক্রবার গণমাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মুন্নাকে গ্রেপ্তারের কথা জানায় সিআইডি। তাকে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন জানানো হবে বলে জানা গেছে।
সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার সমকালকে জানান, আমরা যখন পরপর কয়েকজন কিশোরীর মৃতদেহের সঙ্গে একই ব্যক্তির শুক্রাণু পাচ্ছিলাম, তখন মামলার আলামত এবং ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবে এর হিসাব মেলাতে পারছিলাম না। এসব মৃতদেহে বলপ্রয়োগ করে ধর্ষণের শিকার হওয়ার মতো ইনজুরি মার্কও নেই। তদন্তেও দেখা যায় স্রেফ আত্মহত্যাজনিত ঘটনা।
রেজাউল হায়দার আরও জানান, গ্রেপ্তারের পরপরই মুন্না তার অপরাধের কথা স্বীকার করে। তবে তার চেহারার মধ্যে অপরাধ বোধের ছাপ নেই। সে বিকারহীন। এটা এক ধরনের মানসিক রোগ। বহু বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রে এমন একজনকে পাওয়া গিয়েছিল, যে একশ তরুণী-কিশোরীর লাশ ধর্ষণ করে। ১৮৬০ সালে পেনাল কোডে এক সময় এই অপরাধের সাজা ছিল কোনো নির্জন দ্বীপে নির্বাসনে পাঠানো। বর্তমানে এই অপরাধের সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।
সংশ্নিষ্টরা বলছেন, লাশ যখন মর্গে আসে, সাধারণত সেখানে থাকে একদিন। পরদিন ময়নাতদন্ত হয়। এই সুযোগটা নিয়েছে মুন্না। এ ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে লাশকাটা ঘরে মৃতদেহের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। অন্তত এটা নিশ্চিত করতে হবে, যাতে লাশ কোনো তালাবদ্ধ কক্ষে থাকবে। যেই তালার চাবি থাকবে একজন বিশ্বস্ত চিকিৎসকের কাছে।
সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডোম যতন কুমার সমকালকে জানান, ওই কলেজের মর্গ চালু হয় ২০১৭ সালের অক্টোবরে। মর্গের সরকারি বেতনভুক্ত একমাত্র তিনি। খারাপ ছেলেদের সঙ্গে মেলামেশা থাকায় ভাগ্নে মুন্নাকে গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ী থেকে এনে তার সঙ্গে রাখতেন। ডোমের কাজ শিখিয়েছেন। মুন্নাসহ তার সহযোগীর সংখ্যা চারজন। তারা রাতে মর্গের কোনো কক্ষে বা বারান্দায় থাকত। এর বাইরে একজন নারী আছেন, যিনি কাজ করে চলে যান। ময়নাতদন্ত করতে নিয়ে আসা স্বজনরা যে বখশিশ দেন, তা দিয়ে বাকিদের মাসোহারা দেওয়া হয়।
যতন কুমার বলেন, তার ভাগ্নে এমন জঘন্য কাজে জড়াতে পারে, এটা তার কল্পনারও বাইরে ছিল। ভাগ্নের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান তিনি। ভাগ্নেকে অনেক বিশ্বাস করতেন। মর্গের চাবি মুন্নার কাছেই থাকত বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর