Logo
শিরোনাম :
মহেশখালীর বসতবাড়ীতে আগুন,প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র পুড়ে ছাই,ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ-৮ লক্ষ টাকা চকরিয়ার জনসভায় আ.লীগের যুগ্ন-সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ লবণের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিতে উদ্যোগ নেওয়া হবে মহেশখালীতে পরকিয়া প্রেমের টানে গৃহবধূ উধাও  ভাসানচর ঘুরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যা বললেন ইউসেফ আল দোবেয়ার কক্সবাজারে বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশ কর্ণার’ ও ‘স্বাধীনতা মঞ্চ’ উদ্বোধন বান্দরবানে ২৭ কোটি ৬৩ লাখ ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন কক্সবাজারে ২ পিকআপ সংঘর্ষে পথচারী নিহত ঈদগাঁওতে অক্ষরের উদ্যোগে রচনা প্রতিযোগিতার পুরুস্কার বিতরন সম্পন্ন রামু থানা পুলিশের মাদক ও সন্ত্রাস বিরোধি সাড়াশি অভিযান শুরু মহেশখালীতে আলোচিত গফুর হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

বদরখালীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখল করে দোকান নির্মাণের অভিযোগ দুই সহোদরের বিরুদ্ধে

মহেশখালী প্রতিনিধি। / ৭১ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০

অবৈধ দখলদারদের কবলে চকরিয়া উপজেলা বদরখালীর সিএনজি ষ্টেশন সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুইচ গেইট সংলগ্ন খালের জায়গা। ফলে মারাত্মক হুমকির মুখে পরিবেশ ও উপকূল। ফলে পানি চলাচলের জায়গা দখল ভরাট করে হুমকির মুখে উপকূল। অভিযোগ উঠে কর্মকর্তা কর্মচারীদের যোগ সাজশে স্থানীয় প্রভাবশালী চক্র এসব জায়গা দখল করে তৈরি করছেন দোকান।
বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে জমি দখলের এই মহোৎসব। যাদের কাছে নেই বৈধ কাগজপত্র। কেউ আবার নিজে দখল করে ভুয়া কাগজ দেখিয়ে
বেচে দিয়েছেন অন্যের কাছে। তারপরও কোন ধরণের ব্যাবস্থা না নেওয়ায় প্রতিযোগীতা চলছে দখলের।

এমনি অভিযোগ উঠে আকতার ও ইসমাইল নামে দুই সহোদরের বিরুদ্ধে। তারা জায়গা দখল করে রাতারাতি কাঁচাপাঁকা দোকন নির্মাণ করতেছে। এবিষয়ে আক্তারে কাছে জানতে চাইলে তিনি জমিটি বদরখালী সমিতির মাতাখিলা জায়গা হিসাবে দাবী করে জামাল হোসেন নামে এক ব্যক্তি থেকে নামে মাত্র স্ট্যাম্প মূলে কিনে নিয়েছেন বলে শিকার করেন। জায়গার বৈধ কাগজ পত্র আছে কিনা জানতে চাইলে এড়িয়ে চলেন। তারা দুই সহোদর দীর্ঘদিন ধরে এবি জালাল উদ্দীন সড়কে সিএনজি টমটম থেকে চাঁদা আদায় করে।এছাড়াও চট্টগ্রাম বাহী সিএনজি থেকে ১০০টাকা করে ও চাঁদা আদায়ের অভিযোগ ওঠে। তাদের কাছে পুরা জিম্মি বদরখালীর ষ্টেশন পরিবহন খাত। এই চাদাঁ আদায়ের টাকা দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় নামে বেনামে অবৈধ ভাবে জায়গা দখলের অভিযোগ ওঠে।

এদিকে পরিবেশে আন্দোলন (বাপা)র একজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সদস্য বলেন বদর এভাবেই যদি প্রতিযোগীতা মূলক বদরখালীর সুইচ গেইটের জায়গা দখল করলে খাল আর থাকবে না এবং পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে বলে জানান। এবং দখলদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

বদরখালী কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির সেক্রেটারি নুরুল আমিন জনি বলেন এটা সমিতির জায়গা না,সুইচগেইট সংলগ্ন জায়গাটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের।তাই আমাদের করার কিছুই নেই বলে জানান।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী বলেন ঠিক আছে আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখলকারীদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিচ্ছি বলে জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর