Logo
শিরোনাম :
টেকনাফে ৩৫ হাজার ইয়াবা ফেলে পালিয়েছে পাচারকারী! ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭ মার্চের আলোচনা সভা ও ভাষন সম্প্রচার রাজাপালং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি’র উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছে চকবাজার থানা ছাত্রলীগ কলাতলীতে ট্রাক চাপায় নিহত তিনজনের পরিচয় শনাক্ত, চিকিৎসাধীন ৮ কক্সবাজারে সিমেন্ট বোঝাই ট্রাকের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিক্সার যাত্রীসহ দুইজন নিহত, আহত-৮ ঈদগাঁওতে আবারো গরু চুরি  ট্রেনের নিচে প্রেমিক যুগলের ঝাঁপ, প্রেমিক নিহত নির্বাচিত হলে বোয়ালখালী পৌরসভাবাসীকে সর্বোচ্চ সেবা দিতে প্রস্তুত: মেয়র প্রার্থী ওয়াসিম মুরাদ চিরকুট লিখে ফ্যানের সাথে ঝুলে চবি ছাত্রের আত্মহত্যা

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দরজা কেটে কিশোরীকে ‘ধর্ষণ’

বগুড়া প্রতিনিধি। / ৮১ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় দরজা কেটে ঘরে ঢুকে মাদ্রাসার এক ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলা হয়েছে। মামলায় অভিযুক্ত লিমন মিয়ার (২৬) বাবা সাহেব আলীকে (৫০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সাহেব আলীর বাড়ি একই উপজেলায়। গতকাল মঙ্গলবার রাতে তাকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই কিশোরী একটি মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। লিমন মিয়া ছয় মাস আগে তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেন। কিন্তু মেয়েটি তাতে সাড়া দেয়নি। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে মেয়েটিকে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করতে থাকেন লিমন। বিষয়টি লিমনের বাবাকে জানানো হলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি।

পরে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর রাতে মেয়েটি তার পড়ার কক্ষের বিছানায় ঘুমিয়ে ছিল। পাশের কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলেন মেয়েটির মা-বাবা। লিমন রাতে ঘরের দরজা কেটে ভেতরে ঢুকে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। মেয়েটির চিৎকারে পরিবারের লোকজন ওই ঘরে গিয়ে লিমনকে আটক করেন।

এ সময় খবর পেয়ে ‘বিচার করার’ কথা বলে লিমনকে ওই বাড়ি থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান তার বাবা সাহেব আলী। পরে ভুক্তভোগী মেয়েটিকে গত ৮ ডিসেম্বর সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে মেয়েটির শারীরিক পরীক্ষার চিকিৎসা সনদে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় বলে জানায় পুলিশ। পরে লিমনের বাবার পক্ষ থেকে ‘বিচার না পেয়ে’ ছাত্রীর মা বাদী হয়ে গত ২৮ জানুয়ারি সিরাজগঞ্জ জেলা আদালতে মামলা করেন।

ওই মামলায় লিমন মিয়া ও তার বাবা সাহেব আলীকে আসামি করা হয়। বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে ধুনট থানার ওসিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দেন।

আদালতের আদেশ পেয়ে মঙ্গলবার রাতেই অভিযান চালিয়ে সাহেব আলীকে বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। আজ বুধবার সকালে মামলাটি থানায় রেকর্ড করে সাহেব আলীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে পুলিশ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, ‘আদালতের আদেশে মামলাটি রেকর্ডের পর এজাহারভুক্ত আসামি সাহেব আলীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এই মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর