Logo
শিরোনাম :
চকরিয়ায় অবৈধ বালু উত্তোলনকালে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান: ড্রেজারসহ ৮টি মেশিন ধ্বংস,২৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় মহেশখালী থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে অপহৃত কিশোর’কে ৫ মাস পর উদ্ধার। ইসলামপুরে মালবাহী ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৬  কক্সবাজারে সেই তিন পুলিশ সদস্য সাময়িক বরখাস্তঃ ২ দিনের রিমান্ডে রামুর গর্জনিয়া মাছ বাজার রাস্তার ওপর পঁচা পানির দুর্গন্ধ বাদাম-চকলেটের প্যাকেটে ১৭ হাজার ইয়াবা, গ্রেপ্তার ১ জনগণের প্রসংশায় ভাসছেন মহেশখালী থানার (ওসি) আবদুল হাই চাঁপাই নবাবগঞ্জে ১০ দফা দাবীতে নিরাপদ সড়ক চেয়ে মানববন্ধান পেকুয়ায় কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে জখম,আটক-১ ঈদগাঁওতে মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের উদ্যোগ কলম বিরতি ও প্রতিবাদ সমাবেশ সম্পন্ন

ইয়াবা নিয়ন্ত্রনে উখিয়ার ৩ গডফাদার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ / ২৬২ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

উখিয়ায় ইয়াবা পাচারের বানিজ্যে ৩ গডফাদারের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

জানা যায় উখিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অতি মোনাফার লোভে জড়িয়ে পড়ছে ইয়াবা পাচারে।

যুবসমাজ ধ্বংসকারী শীর্ষ ইয়াবাডন রত্নাপালংয়ের ইউনিয়নের করইবনিয়া গ্রামের আলী আহম্মদ(প্রকাশ)লালুর ছেলে নুরুল আমিন গত ২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ তার সহযোগী উখিয়া থানা পুলিশের হাতে আটক হলে তলের বিড়াল বেরিয়ে আসে।ঐ মামলায় তাকে আসামী করা হয়।যার মামলা নং ২৮/১৫৯,২১/২০১৯।মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন-২০১৮ ধারা-৩৬(১)১০ক এর মামলায় সে এজাহারে অভিযুক্ত।

এলাকাবাসীরা জানান,নুরুল আমিনসহ তার সহযোগীদের গ্রেপ্তারপূর্বক কঠিন শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট দাবী জানিয়েছেন।

সূত্রমতে, উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের করইবনিয়া গ্রামের আলী আহম্মদ(প্রকাশ)লালুর ছেলে নুরুল আমিন দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে তার সহযোগীদের নিয়ে।রাজাপালং  ইউনিয়নের চাকবৈঠা গ্রামের রশিদ আহম্মদ এর ছেলে মোঃ ফারুক।

তারা সীমান্তবর্তী নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ইয়াবা এনে এলাকার উঠতি বয়সী ছাত্র ও যুবসমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে একটি বৃহত্তর সিন্ডিকেট গড়ে তোলে তাদের মাধ্যমে দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহর ঢাকা, চট্রগ্রাম, সিলেট, খুলনা, বরিশাল, কক্সবাজারসহ দেশের আনাচে – কানাচে হাড়িহাড়ি ইয়াবা পৌছে দিলেও দেখার কেই নেই।
স্থানীয় নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক যুবক জানান,নুরুল আমিনের নেত্বতে ফের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে তার সহযোগীরা। তিনি আরো জানান, তার ইয়াবা পাচার বা অপকর্মের বিরুদ্ধে এলাকার কেউ প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে চরম অত্যাচার ও নির্যাতন। তাই এলাকার কেউ মুখ খুলতে সাহস পাইনা।

স্থানীয় সচেতন মহলের অভিযোগ, অতি শিঘ্রই নুরুল আলমসহ তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা না হলে এলাকার উঠতি বয়সী ছাত্র ও যুবসমাজকে রক্ষা করা কঠিন হয়ে পড়বে বলে তারা মনে করেন।
উখিয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ আহমদ সনজুর মোরশেদ জানান, মাদকের সাথে জড়িত সে যতবড়ই শক্তিধর হোক না কেন তাদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর