Logo

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বির্শ্বের কাছে প্রশংসা কুড়িয়েছেঃতুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কায়সার হামিদ মানিক / ৯৩ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২২

উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে তুরষ্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সোলাইমান সয়লু বলেন, তুরষ্ক বাংলাদেশের পাশে রয়েছে। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে বলেন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য মাদার অব হিউমিনিটি বলে উল্লেখ করেন।

শনিবার সকালে বালুখালী ৯নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গেল বছরের ২২ মার্চের অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া তার্কিশ সরকারি সংস্থা আফাদ পরিচালিত ৫০ শয্যার ফিল্ড হাসপাতালের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। এক দিনের সফরে এসেছেন তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সোলাইমান সয়লু।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বক্তব্য রাখেন।

পরে তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একই এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে আশ্রয়হারা রোহিঙ্গাদের জন্যে নির্মাণাধীন অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি রোহিঙ্গা যুবকদের সঙ্গে কিছুটা সময় খেলায় মাতেন। আর বিভিন্ন বয়সের মানুষের সঙ্গে কথা বলেন।

পরে তিনি ১৭নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তুর্কি রেড ক্রিসেন্টের স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম এবং তুরস্কের দিয়ানাত ফাউন্ডেশন পরিচালিত রোহিঙ্গা দ্বারা সাবান তৈরির কারখানা পরিদর্শন করেন।

এসময় রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিভিন্ন বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান এবং জীবন ধারণে সাহায্য করে আসছে। তিনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সার্বিক ব্যবস্থাপনা এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থার ভূয়সী প্রশংসা করেন। দুর্যোগ ব্যববস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তুরষ্কের সহযোগীতা মূলক কর্মকান্ডের জন্য ধন্যবাদ জানান। দুই দেশের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

মন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে রোহিঙ্গা বাচ্চারা বাংলাদেশ ও তুরস্কের পতাকা নেড়ে স্বাগত জানায়।তিনি বাচ্চাদের সাথে হাসিমুখে কথা বলেন এবং প্রত্যেকের নাম জিজ্ঞাসা করেন। তিনি টার্কিশ প্রতিষ্ঠানগুলো ঘুরে ঘুরে দেখেন এবং কার্যক্রম সম্পর্কে জানেন।

এর আগে তিনি ৮ এপিবিএন আওতাধীন রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৯ এ অবস্থিত তুর্কি হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। এ সময় দুর্যোগ ব্যববস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান,চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কামরুল হাসান, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি মো: আনোয়ার হোসেন, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো: মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার মো:হাসানুজ্জামান,শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ্ রেজওয়ান হায়াত, ঢাকাস্থ তুর্কি দূতাবাসের কর্মকর্তা ও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্বে নিয়োজিত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন এপিবিএন’র অধিনায়ক পুলিশ সুপার মোঃ শিহাব কায়সার খান, ১৪ এপিবিএন’র অধিনায়ক পুলিশ সুপার মোঃ নাইমুল হক ও ১৬ এপিবিএন’র অধিনায়ক পুলিশ সুপার মোঃ তারিকুল ইসলাম, ৮ এপিবিএন’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কামরান হোসেন,এস এম ইসতিয়াক রহমান ক্যাম্প১৭ সিআইসিসহ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তা এবং তুরষ্কের অফিসিয়াল পদস্থ কর্তকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

১৪ এপিবিএন আওতাধীন তুরষ্কের স্থাপনা পরিদর্শন শেষে তিনি বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ইয়াহিয়া গার্ডেন এলাকায় অবস্থিত তুর্কিস রেস্টুরেন্ট “TIKA Kitchen “” এ মধ্যাহ্ন ভোজে অংশগ্রহণ করেন।পরবর্তীতে তাকে জেলা পুলিশ ও এপিবিএনের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে দুপুরে বিশেষ বিমানযোগে ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা হন সোলাইমান সয়লু। বিকেলে ঢাকায় পৌঁছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হয়ে রাতেই তুরস্কে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে তার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর