Logo

সীতাকুণ্ডে অগ্নিকাণ্ড: সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১০১ জন

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি। / ১৭ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ১১ জুন, ২০২২

সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালসহ কয়েকটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন ১৬৩ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১০১ জন। এখনও চিকিৎসাধীন আছেন ৬২ জন।

শনিবার বিকালে সর্বশেষ এ তথ্য জানান চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার। তিনি বলেন, সীতাকুণ্ডে কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের পর সোমবার পর্যন্ত চমেক হাসপাতাল, সিএমএইচ, পার্কভিউ, কেন্দ্রীয় পুলিশ, বিভাগীয় পুলিশ, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, মেট্রোপলিটন হাসপাতাল, মা ও শিশু হাসপাতালে ভর্তি হন ১৬৩ জন।

এর মধ্যে শনিবার বিকাল পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১০১ জন। চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬২ জন। এদের মধ্যে আইসিইউতে কেউ নেই। সবার অবস্থা মোটামুটি ভালো ও আশঙ্কামুক্ত।

এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান বলেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সোমবার দগ্ধদের দেখতে এসে কিছু রোগীকে বাসায় পাঠিয়ে দেওয়ার কথা বলেছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন। ফলে যাদের শারীরিক অবস্থা ভালো, তাদের ক্রমান্বয়ে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। তাদের ফলোআপ চিকিৎসায় রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিএম কন্টেইনার ডিপোতে গত শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আগুন লাগে। কন্টেইনারে থাকা রাসায়নিক পদার্থের কারণে দফায় দফায় বিস্ফোরণে বাড়ে আগুনের ভয়াবহতা। এ ঘটনায় ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন দুই শতাধিক। নিহতদের মধ্যে ৯ জন ফায়ার সার্ভিস সদস্য রয়েছেন।

চমেক হাসপাতালের তথ্যমতে, নিহতদের মধ্যে ২৭ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। তাদের মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ১৯ মৃতদেহ এখনও চমেক হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

এ ছাড়া সোমবার ডিপোর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। বিস্ফোরণের ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে সীতাকুণ্ড থানায় মামলা করেছেন থানার এসআই আশরাফ সিদ্দিকী। তিনি জানান, দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে ডিপোর আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে মামলার আসামি করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর