Logo

টাঙ্গাইলে গভীর রাতে যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণ

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি। / ২১ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ আগস্ট, ২০২২

কুষ্টিয়া থেকে নারায়ণগঞ্জগামী একটি বাস ছিনতাই করে ডাকাতির পর ৩০ বছর বয়সী এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে। ডাকাতরা হাত-মুখ ও চোখ বেঁধে অস্ত্রের মুখে টানা তিন ঘণ্টা জিম্মি করে রাখে যাত্রীদের। বাসটি চলন্ত অবস্থায় ছিল সংঘবদ্ধ ডাকাতরা যাত্রীদের কাছে সর্বস্ব লুট করে নারী যাত্রীদের সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। নারকীয় ও পৈচাশিক ঘটনাটি ঘটে গত মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) রাতে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাশ থেকে টাঙ্গাইলের মধুপুর এলাকা পর্যন্ত।

ঈগল পরিবহনের একটি গাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। তবে এই ঘটনায় ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও দুর্বৃত্তদের কাউকেই শনাক্ত করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশ সূত্র জানায়, ভিকটিম শিকার নারীকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, ছিনতাই করা বাসটি মধুপুরে এসে দুর্ঘটনার শিকার হয়। বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড়ে পৌঁছালে যাত্রীবেশে ১০-১২ জন ওঠেন। যাত্রীবেশে ওঠা যাত্রীরা বাসটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বাকি যাত্রীদের জিম্মি করে ফেলে। মধুপুরের কাছে এসে বাসটি দুর্ঘটনার শিকার হলে স্থানীয়রা এসে যাত্রীদের উদ্ধার করেন।

বাস যাত্রীদের কাছ থেকে জানা যায়, মঙ্গলবার কুষ্টিয়া থেকে ঈগল পরিবহনের একটি বাস অন্তত ২৫ জন যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। বাসটি বঙ্গবন্ধু সেতু পার হলে যাত্রীবেশী ডাকাতেরা অস্ত্রের মুখে ঘুমন্ত যাত্রীদের হাত-মুখ ও চোখ বেঁধে জিম্মি করে। এরপর যাত্রীদের কাছে থাকা মোবাইল, টাকা, স্বর্ণালংকার লুট করে নেয়। পরে ডাকাত দলের সদস্যেরা গাড়িতে থাকা এক নারী যাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে বলে জানান একাধিক যাত্রী।

টানা তিন ঘণ্টা যাত্রীদের ওপর চালানো নির্যাতনের পর টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার রক্তিপাড়া নামক স্থানে এসে বাসটির গতি থামিয়ে ডাকাত দল নেমে যায়। মুহূর্তের মধ্যেই চোখ-মুখ ও হাত বাঁধা যাত্রীদের নিয়ে বাসটি রাস্তার পাশের বালুর ঢিবিতে কাত হয়ে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করেন।

কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা বাসটিতে নাটোরের বড়াই গ্রামের বাসিন্দা ফল ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন, তিনি নাটোরের তরমুজ চত্বর থেকে বাসে ওঠেন। তিনি আমড়া, কাঁঠাল ও তাল ঢাকায় বিক্রি করার জন্য নিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা বাসে উঠে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। আমাদের বাসটি সিরাজগঞ্জের কাছাকাছি “দিবারাত্রি হোটেলে” রাতের খাবারের জন্য বিরতি দেয়। বাসের অনেকেই ওই হোটেলে খাবার খান। আমিও ওই বাসের সুপারভাইজার রাব্বি ও সহযোগী দুলালের সাথে বসে খাবার খেয়েছি। আগে যে চালক বাস চালাতেন, আজ সেই চালক ছিলেন না। কড্ডার মোড়ে আসার পর গেঞ্জি, শার্ট পরা ১০-১২ জন যাত্রী ওঠেন। তাদের প্রত্যেকেরই পিঠে ব্যাগ ছিল। তাঁরা বাসের খালি সিটগুলোতে বসে পড়েন। বাসটি বঙ্গবন্ধু সেতু পার হওয়ার পর যাত্রীবেশে ওঠা এই ডাকাত দলের সদস্যেরা অন্য ঘুমন্ত যাত্রীদের অস্ত্রের মুখে একে একে বেঁধে ফেলে। একই সঙ্গে প্রত্যেক যাত্রীর চোখ ও মুখ বেঁধে জিম্মি করে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় তারা। এমনকি শিশুদেরও একই কায়দায় বেঁধে রাখে তারা। পরে সব যাত্রীর কাছ থেকে মোবাইল, টাকা, গয়না লুট করে নেয়। তার পর নারী যাত্রীদের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়।’

ওই বাসের আরেক যাত্রী বেসরকারি চাকরিজীবী নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ নাটোর থেকে বাড়ি যাচ্ছিলেন অসুস্থ মাকে দেখার জন্য। সঙ্গে ছিল বেতনের ২২ হাজার ৮০০ টাকা। এর মধ্যে ১০০ টাকা রেখে বাকি পুরো টাকাই ডাকাতেরা নিয়ে গেছে বলে জানান তিনি। বাসযাত্রী হাবিবুর রহমান বলেন, ‘স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করেছেন। রক্তিপাড়া জামে মসজিদের ইমাম আমাকে নাশতাও করিয়েছেন।’ সংবাদ পেয়ে মধুপুর থানা-পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। গাড়িতে থাকা দেশি অস্ত্র উদ্ধারের কথা স্বীকার করেছেন মধুপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) এনামুল হক।

বাসের এক নারী যাত্রী কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার তারাগুনিয়া গ্রামের শিল্পী বেগম বলেন, ‘আমি আমার অসুস্থ মেয়েকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছিলাম। আমাদের সবাইরে হাত, মুখ, চোখ বাইন্দা ডাকাতরা সব লুট কইরা নিছে। আমার স্বামী পিয়ার আলিকে ছুরি দিয়ে আঘাত করছে। আমার কাছ থিকা ৩০ হাজার টাকা নিয়া গেছে।’ ওই বাসে থাকা অন্য নারী যাত্রীরা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে মধুপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাজহারুল অমিন বুধবার রাতে সময়ের আলোকে জানান, ডাকাতদল যাত্রীদের মালামাল লুটের পর নারী যাত্রীকে ধর্ষণ করেছে। ভুক্তভোগীকে চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এক যাত্রী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি আরও বলেন, দুর্বৃত্তদের কাউকেই এখনো সনাক্ত করা যায়নি। আমরা তাদের গ্রেফতার করতে জোর চেষ্টা চালাচ্ছি। তিনি বলেন দুর্বৃত্তরা বাস চালক ও তার সহযোগীকেও পিটিয়ে আহত করে। তাদের বেঁধে রেখে যাত্রীদের সর্বস্ব লুট করে ডাকাতেরা। যাত্রীদের সবাইকে পুলিশের সহযোগিতায় বাড়ি পাঠানো হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর