Logo
শিরোনাম :
টেকনাফে অস্ত্র-গুলি-ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১ কক্সবাজার সৈকতে গোসলে নেমে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু কক্সবাজারে ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল হত্যার নেতৃত্বদানকারী আজিজ গ্রেপ্তার ১৬ মাসে ২০ লাখ ইয়াবাসহ ২৪৯ অস্ত্র উদ্ধার,আটক-৯৭২ সম্মেলন থেকে ফেরার পথে কক্সবাজারে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা উখিয়ায় আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন টেকনাফে অস্ত্র ও গুলিসহ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার উখিয়ায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ৬ রোহিঙ্গা গ্রেফতার উখিয়ায় এনজিও কর্মীকে কুপিয়ে জখম,মাদকাসক্ত রোহিঙ্গা আটক

প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা প্রেমিকার

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি। / ১৯০ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৫ বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেও শেষে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি করায় প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছে প্রেমিকা। পুলিশ প্রতারক প্রেমিককে গ্রেপ্তার করেছে।
থানায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ভাটেরখীল জেলেপাড়া গ্রামের পলি জলদাশ (ছদ্মনাম) নামক এক যুবতী চট্টগ্রামের ফ্রি পোর্ট এলাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকুরি করতেন। গত ৫ বছর আগে সেখানে চাকুরির সূত্র ধরে পলির (২৬) সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে সীতাকুণ্ডের শীতলপুর বগুলাবাজার এলাকার সন্তোষ জলদাশের ছেলে সুমন জলদাশের (৩০)। যুবতীটির অভিযোগ, প্রেম হবার পর থেকেই বিয়ের আশ্বাস দিয়ে সুমন তার সাথে নিয়মিত শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে যাচ্ছিল। সর্বশেষ গত ১লা ফেব্রুয়ারী পলির বাড়িতে লোকজন না থাকার সুযোগ নিয়ে সুমন পুনরায় তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক তৈরী করে। এরপর তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে কৌশলে এড়িয়ে যেতে থাকে। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় সে। দীর্ঘদিনেও সে বিয়ে না করায় পলি ধর্ষণের অভিযোগ তুলে গত রবিবার রাতে সীতাকুণ্ড থানায় প্রেমিক সুমনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পুলিশ সোমবার অভিযান চালিয়ে প্রতারক প্রেমিক সুমনকে গ্রেপ্তার করেছে। সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ৫ বছর আগে তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠার পর থেকেই সুমন পলির সাথে নিয়মিত শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করছিলো। কিন্তু বিয়ের প্রশ্ন আসায় সে অস্বীকার করে। এ কারণে প্রেমিকা মামলা দায়ের করলে আমরা সুমনকে গ্রেপ্তার করেছি। তবে গ্রেপ্তারের পর সে প্রেমিকাকে বিয়ে করতে রাজি হয়। কিন্তু মামলার পর আমরা তাকে ছাড়তে পারি না। তাই আমরা বলেছি আদালতে গিয়েই বলতে হবে সে যে বিয়ে করতে রাজি আছে। তাহলে আদালত জামিনের ব্যাপারটি বিবেচনা করতে পারেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর